নতুন নিয়মে খেলা হবে ফুটবল



ফুটবলের জনপ্রিয়তা আকাশ ছোঁয়া। বিশ্বের প্রায় সবগুলো দেশই ফুটবলের উত্তেজনায় নিজেদের মাতিয়ে রাখে। খেলাটিকে আরো বেশি প্রতিযোগিতামূলক, উত্তেজনাকর, আকর্ষণীয় ও জনপ্রিয় করতে ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা ফিফা সব সময়ই সচেষ্ট থাকে।

ফিফার অঙ্গ সংগঠন ইন্টারন্যাশনাল ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন বোর্ড (আইএফএবি) নিয়মিত খেলাটির নিয়মকানুনের দিকটি লক্ষ্য রাখে। সম্প্রতি আইএফএবি ফুটবল খেলার বেশ কিছু নিয়মের মধ্যে আনতে চলেছে পরিবর্তন।

চলুন দেখে নেওয়া যাক কি সেই পরিবর্তন :

১. অনেক সময়ই দেখা যায় ম্যাচের শেষ দিকে জিততে থাকা দল ইচ্ছাকৃতভাবে সময় নষ্ট করার জন্য খেলোয়াড় পরিবর্তন করে। সে সময় বাঁচাতে খেলোয়াড় বদলের ক্ষেত্রে নতুন নিয়ম করা হয়েছে।

পুরাতন নিয়মে বেরিয়ে যাওয়া ফুটবলারের মাঝবৃত্তে এসে মাঠ থেকে উঠতে অনেকটা সময় ব্যয় হয়। মাঠ ছাড়তে দেখা যায় ঢিলেঢালা ভাব ও অলস ভঙ্গি। নতুন নিয়মে যে জায়গায় খেলোয়াড় আছে ঠিক সেই টাচলাইন থেকেই দ্রুত মাঠ ছাড়তে হবে বেরিয়ে যাওয়া খেলোয়াড়কে।

২. পেনাল্টি নেওয়ার পর গোলরক্ষক যদি সেটিকে ফিরিয়ে দেন, কিংবা গোলপোস্টে প্রতিহত হয়ে বল ফিরে আসে তাহলে ফিরতি বলে শট নিয়ে গোল করার সুযোগ ছিল।

তবে নতুন নিয়ম অনুযায়ী সে সুযোগ আর থাকছে না। গোলরক্ষক একবার বল ঠেকিয়ে দিলে আর ফিরতি শট নেওয়া যাবে না।

৩. অনিচ্ছাকৃতভাবে কোনো খেলোয়াড়ের হাতে বল লাগলে এত দিন হ্যান্ডবলের বাঁশি বাজাতেন না রেফারি। তবে জুন থেকে খেলোয়াড়ের ইচ্ছাকৃত বা অনিচ্ছাকৃত, উভয় হ্যান্ডবলই ফাউল হিসেবে গণ্য হবে।

৪. কোচদের জন্য আসছে লাল কার্ড। যদি কোনো কোচ মেজাজ হারিয়ে কিছু করে বসেন তবে তাকে হলুদ বা লাল কার্ড দিতে পারবেন রেফারী।

৫. ফ্রি-কিক নেওয়ার সময় প্রায়ই দুদলের ফুটবলাররা মানবদেয়াল তৈরি করতে গিয়ে জটলা ও হুড়োহুড়ি করেন। গোলবারের সামনে দাঁড়ানো নিয়ে অনেক সময় হাতাহাতিও শুরু হয়ে যায়। নতুন নিয়মে ফ্রি-কিক নিতে যাওয়া দলের কেউ মানবদেয়াল তৈরি করতে পারবেন না। শুধু গোল ঠেকানোর চেষ্টায় থাকা দলের খেলোয়াড়রাই সেখানে দাঁড়াতে পারবেন।

চলতি বছরের জুন মাস থেকে ফুটবলে এই নিয়মগুলো কার্যকর হবে বলে  নিজেদের অফিশিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্টে জানিয়েছে আইএফএবি।