এনফিল্ডে থমকে গেছে লিভারপুল, শিরোপা ম্যানচেস্টার সিটির



সমীকরণ সহজ – জিততে হবে লিভারপুলকে, অন্যদিকে হারতে হবে ম্যানচেস্টার সিটিকে। তবেই লিভারপুলের ভাগ্যে উঠবে শিরোপা। কিন্তু ম্যানচেস্টার সিটি জিতলেই কপাল পুড়বে অল রেডদের।

শেষ রাউন্ডের খেলায় এমন উত্তেজনার মুহূর্তে ঘরের মাঠ এনফিল্ডে উলভারহ্যাম্পটনের মুখোমুখি লিভারপুল। অন্যদিকে এওয়ে ম্যাচে ব্রাইটনের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল ম্যানচেস্টার সিটি।

শিরোপা জিততে জয়ের কোনো বিকল্প নেই সিটিজেনদের। এমন সমীকরণ মাথায় নিয়ে ব্রাইটনের মাঠে ২৭ মিনিটেই গোল খেয়ে বসে পেপ গার্দিওলার শিষ্যরা।

শুরুতেই গোল খেলেও খেই হারায় নাই ম্যানচেস্টার সিটি। কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে গোল করে দলকে সমতায় ফেরান সার্জিও আগুয়েরো। গোল দিয়েই যেন তেতে উঠে আগুয়েরো, মাহারেজ, ডেভিড সিলভারা।

৩৮ মিনিটে রিয়াদ মাহারেজের কর্ণার থেকে হেডে গোল দলকে ২-১ এর লিড এনে দেন লাপোর্তো। ২-১ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় সিটিজেনরা।

বিরতি থেকে ফিরেই আক্রমণের পসরা সাজিয়ে বসে পেপ গার্দিওলার দল। মুহুর্মুহু আক্রমণে ব্যস্ত রাখেন ব্রাইটনের রক্ষনভাগকে।

এরই মাঝে মাহারেজের ৬৩ মিনিটের গোলে ৩-১ এ এগিয়ে যায় ম্যানচেস্টার সিটি। মূলত এই গোলেই নিশ্চিত হয় সিটির প্রিমিয়ার লিগ শিরোপা। তবে ফ্রি-কিক গোলের মধ্য দিয়ে ব্রাইটনের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকেন গুন্দোগান।

৪-১ এর জয় নিয়ে টানা দ্বিতীয় এবং শেষ আট মৌসুমে চতুর্থ শিরোপা জিতল ম্যানচেস্টার সিটি।

অন্য খেলায় সাদিও মানের জোড়া গোলে উলভারহ্যাম্পটনকে ২-০ ব্যবধানে হারায় লিভারপুল। তবে ম্যানচেস্টার সিটির জয়ে শিরোপা জয়ের স্বপ্ন ভেস্তে গেছে ইউর্গেন ক্লপের শিষ্যদের।

মাত্র এক পয়েন্ট পিছিয়ে থেকে, ৯৭ পয়েন্ট নিয়েও শিরোপা ঘরে তুলতে না পারা লিভারপুল সমর্থকরা কেবল ভাগ্যকেই দোষ দিতে পারেন। অসাধারণ এক লীগ সমাপ্ত হয়েছে পেপ গার্দিওলার ৯৮ ও ইউর্গেন ক্লপের ৯৭ পয়েন্ট অর্জনের মধ্য দিয়ে।

মাত্র একটি পরাজয় নিয়েও শিরোপা জিততে না পারা লিভারপুল এখনো টিকে আছে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে। গতবারের ফাইনালিস্ট এবার স্বদেশী দল টটেনহামের বিপক্ষে জিততে পারলে ঘুচবে দীর্ঘ ২৯ বছরের শিরোপা খরা।