‘উৎপাদন বেশি, কৃষককে ন্যায্যমূল্য দিতে প্রয়োজন রপ্তানি’



কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন ‘সরকার ৩৬ টাকা কেজি দরে চাল ক্রয় করলেও সংশ্লিষ্ট প্রভাবশালী, মিলার ও সরকারি কর্মকর্তাদের কারণে কৃষকরা প্রকৃত দাম পাচ্ছে না। কৃষককে ন্যায্যমূল্য দিতে শিগগিরই চাল রপ্তানির পরিকল্পনা রয়েছে।‘

কৃষকরা জানিয়েছেন বিঘা প্রতি ২০ হাজার খরচ। ধান বিক্রি হচ্ছে ১৮ হাজার টাকা। জনের মজুরী, সারের দাম দিতে দিতে আমাদের আর কিছু থাকে না।

ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দুই কোটি ৬০ লাখ টন চাহিদার বিপরীতে দেশে আউশ, আমন এবং বোরো ধান মিলিয়ে এবার ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা দাঁড়িয়েছে প্রায় তিন কোটি ৫০ লাখ টন। চাহিদার তুলনায় অতিরিক্ত উৎপাদন, ঘোষণা দিয়েও যথাসময়ে সরকার ধান সংগ্রহ না করাসহ নানা কারনে উৎপাদন মূ্ল্যের চেয়েও বাজারে ধানের দাম কম। অনেকটা বাধ্য হয়েই কম মূল্যে ধান বিক্রি করছেন কৃষকেরা। ন্যায্য মূল্যে ধান বিক্রি করতে না পেরে বিপাকে পড়েছেন তারা।

মন্ত্রী বলেন, এখন চাল রপ্তানি করা ছাড়া আর কোনো উপায় দেখছি না। ঝুঁকি আছে। তবুও চেষ্টা করতে হবে।