আইফোন জালিয়াতি, ক্ষতির মুখে পড়েছে অ্যাপল!



সাম্প্রতিক সময়ে, বিখ্যাত মোবাইল সেবা প্রতিষ্ঠান অ্যাপল তাদের আইফোন জালিয়াতির কারণে প্রায় ৮ লাখ ৯৫ হাজার ৮০০ ডলার ক্ষতির মুখে পড়েছে বলে জানা গেছে।

এছাড়াও এই জালিয়াতির কারণে, ইয়াংইয়াং জোও এবং কুয়ান জিয়াং নামের দুই চীনা শিক্ষার্থীকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। ওই দুই শিক্ষার্থী, যুক্তরাষ্ট্রের ওরেগন স্টেট ইউনিভার্সিটির প্রকৌশল বিদ্যা ও বেন্টন কমিউনিটি কলেজের শিক্ষার্থী বলে জানা যায়।

এছাড়াও, তারা পড়াশোনার পাশাপাশি হংকং থেকে চীনা স্মার্টফোন নিয়ে আসতেন এবং ওই স্মার্টফোনকেই আইফোনের মডেলে তৈরি করেন। পরবর্তীতে নকল আইফোন বিষয়ে তারা ইমেইলের মাধ্যমে অ্যাপলের কাছে অভিযোগ পাঠাতেন। তারপর অ্যাপল ওয়ারেন্টির প্রক্রিয়া হিসেবে তাদের নতুন ব্র্যান্ডের আইফোন পাঠিয়ে দিত। এরপর অভিযুক্তরা ওই নতুন আইফোন বিদেশে মোটা অংকে বিক্রি করে দিতেন।

২০১৭ সাল থেকে করা এই আইফোন জালিয়াতিতে চীনা ওই দুই শিক্ষার্থী ভালোভাবে সফল হয়েছেন। এর জন্য নতুন আইফোন দিতে গিয়ে অ্যাপলের ৮ লাখ ৯৫ হাজার ৮০০ ডলার খরচ হয়েছে।

তবে অ্যাপল বলছে, তাদের কর্মীরা কেবল নিয়মনীতি অনুসরণ করে গেছে। তারা এটাও মনে করেছে যে আসলেই গ্রাহকদের ত্রুটিপূর্ণ আইফোন সরবরাহ করা হয়েছিল।

প্রতিবেদনে জানা গেছে, ওই দুই শিক্ষার্থীদের ৩ হাজার ৬৯টি আইফোনের মধ্যে অ্যাপল মোট ১ হাজার ৪৯৩টি নতুন আইফোন দিয়েছে। তবে অ্যাপল যখন এ জালিয়াতি বুঝতে পারে, তখন তারা হ্যান্ডসেট দেয়া বন্ধ করে দেয়। সেইসাথে তারা ওই দুই শিক্ষার্থীকে নোটিশ পাঠায়।

এই জালিয়াতিতে ওই দুই চীনা শিক্ষার্থীকে ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে জিয়াংয়ের বিরুদ্ধে জালিয়াতি ও পণ্য পাচার এবং জোওয়ের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে পণ্য রফতানির অভিযোগ আনা হয়েছে। তারা দুজনই এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

এছাড়াও, আইফোন বিক্রি কমার কারণে চীনের দুর্বল ও শ্লথগতির অর্থনীতিকে দায়ী করে আসছে অ্যাপল। চীন আইফোন ডিভাইসের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বাজার। এছাড়া যুক্তরাষ্ট্র-চীনের মধ্যকার বাণিজ্যযুদ্ধকেও আইফোন বিক্রি কমার জন্য দায়ী করা হচ্ছে।