এগিয়ে ইমরান; কারচুপির অভিযোগ নওয়াজের দলের


Imran-Khan

পাকিস্তানে ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে ভোট গ্রহণ শেষ হয়েছে। আংশিক ভোট গণনায় এগিয়ে থাকার খবরে সাবেক ক্রিকেট তারকা ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) জয়োল্লাসে মাতলেও বড় ধরনের কারচুপির অভিযোগ এনে তা প্রত্যাখ্যান করেছে দুর্নীতির অভিযোগে ক্ষমতাচ্যুত নওয়াজ শরিফের দল পিএমএল-এন।

বুধবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে ভোট গণনা শুরু হয়ে রাতভর গণনা চললেও বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত মাত্র ৪৭ শতাংশ ভোট গণনা শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছে পাকিস্তানের ইংরেজি দৈনিক ডন।

তাতে দেখা যাচ্ছে, পার্লামেন্টের ২৭২টি আসনের মধ্যে ইমরান খানের পিটিআই ১১৩টি আসনে এগিয়ে আছে। নওয়াজ শরিফের দল পিএমএল-এন এগিয়ে আছে ৬৪ আসনে। আর সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর ছেলে বিলাওয়ালের নেতৃত্বাধীন পিপিপি এগিয়ে ৩৯ আসনে।

গত সাত দশক পাকিস্তানের রাষ্ট্রক্ষমতায় থাকা দলগুলোকে নির্বাচনে হারিয়ে একাদশ সাধারণ নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ আসন করায়ত্ত করেছে পিটিআই।

তবে প্রাথমিক ফলাফলের ধারা দেখে মনে হচ্ছে, ইমরান খানের দল এগিয়ে থাকলেও নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলে তাকে সরকারগঠনের জন্য জোট বাঁধতে হতে পারে।

সরকার গঠন করতে হলে যে কোনো দলকে ১৩৭টি আসনে জিততে হবে। কোনো দল সেই আসন না পেলে ঝুলন্ত পার্লামেন্টের দিকে যেতে পারে পাকিস্তান।

পাকিস্তান জাতীয় পরিষদে সরাসরি নির্বাচনের মোট আসন সংখ্যা ২৭৪টি হলেও দুটি আসনে ভোট স্থগিত হওয়ায় ভোট দেন ২৭২ আসনের ভোটাররা। নারী ও সংখ্যালঘুদের জন্য নির্ধারিত বাকি ৭০টি আসন বিজয়ী দলগুলোর মধ্যে সংখ্যানুপাতে বণ্টন হবে।

ব্যাপক আলোচনার পাশাপাশি উদ্বেগের মধ্যেই বুধবার পাকিস্তানজুড়ে ভোটগ্রহণ হয়। ৮ হাজারের বেশি ভোটকেন্দ্রে ১০ কোটি ৬০ লাখ ভোটারের ভোট নেওয়ার ব্যবস্থা হলেও ভোটের হার বেশ কম ছিল বলেই পাকিস্তানি সংবাদমাধ্যমের খবর।