কুড়িগ্রাম জেলার বন্যা পরিস্থিতির অবনতি



কুড়িগ্রাম জেলার বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রুপ ধারণ করেছে। গতকাল পর্যন্ত জেলার ধরলা, ব্রহ্মপুত্র নদীতে বিপদসীমার ১৫০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢালের কারণে জেলার উলিপুর,চিলমারি,নাগেশ্বরী উপজেলার প্রায় ৪৮৮টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এমতাবস্থায় গ্রামাঞ্চল সহ অনেক জায়গায় বন্যার পানিতে নিম্নাঞ্চল তলিয়ে গিয়েছে।

জানা গেছে,গতকাল উলিপুর উপজেলার অনন্তপুর গ্রামে নারী ও শিশুসহ ৫ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এছাড়াও একই উপজেলার হাতিয়া, বাগুয়া অনন্তপুর,থেত্রাই,চর বজরা সহ অন্যান্য সব গ্রাম প্লাবিত হয়েছে বন্যার কারণে।

এদিকে বন্যার কারণে এসব অঞ্চলের জনগন মানবেতর জীবনযাপন করছেন। আরও জানা যায়, পাহাড়ি ঢলে নেমে আসা পানিতে বন্যার কারণে ওই সকল এলাকার মানুষজন ডায়রিয়া,টাইফয়েড সহ বিভিন্ন প্রকার পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন এলাকায় সরকারি ত্রাণ সরবরাহ চালু করা হয়েছে বলেও জানা গেছে।

প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে,বন্যা পরবর্তী সময় পর্যন্ত তাদের এই কর্মসূচি চলমান থাকবে। বন্যা আক্রান্ত ওই সকল এলাকার মানুষজন যাতে বিশুদ্ধ পানি পায় সে জন্য জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস এর পক্ষ থেকে প্রতিনিয়তই বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের কর্মসূচিও চলমান রয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক সুলতানা পারভিন জানান, বন্যা পরবর্তী সময় পর্যন্ত আক্রান্ত মানুষজনের পাশে থেকে সকল প্রকার সহায়তা চলমান থাকবে।