ফেসবুক ছাড়লে সুখী থাকা যায়



মানসিক সমস্যার সাথে ফেসবুকের সম্পর্ক নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই চলছে আলোচনা ও সমালোচনা। অনেকেই ডিপ্রেশনের মত সমস্যায় ফেসবুক সহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমকেই দাবি করছেন। এবার শোনা যাচ্ছে, কয়েক দিনের জন্য ফেসবুক ব্যবহার বন্ধ রাখলে মানুষ সমসাময়িক অনেক বিষয়ে জানতে পারে না ঠিকই; কিন্তু তারা সুখী থাকে।

সম্প্রতি নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয় ও স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের এক যৌথ গবেষণায় এমন তথ্যই উঠে এসেছে।

গবেষণা প্রতিবেদন অনুযায়ী, সাময়িক সময়ের জন্য ফেসবুক ব্যবহার বন্ধ করলে মানুষ অফলাইনে আরো বেশি সময় কাটানো, টিভি দেখা, পরিবার ও বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় যোগ দেয়ার সুযোগ পায়। ফেসবুক ব্যবহার না করলে অনেক বিষয় সম্পর্কে মানুষ অজ্ঞাত থাকে। কিন্তু তা ব্যক্তিজীবনে খুব বেশি গুরুত্ব ফেলে না। কারণ ফেসবুক ছাড়াও আরো বিভিন্ন মাধ্যম থেকে মানুষ জানার আগ্রহ পূরণ করতে পারে। তবে মানুষের স্ব-নির্ধারিত সুখ এবং জীবন সন্তুষ্টির মতো বিষয় বেড়ে যায়।

২ হাজার ৮৪৪ জন ফেসবুক ব্যবহারকারীর ওপর জরিপ চালিয়ে এ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। জরিপে অংশ নেয়াদের ভাষ্যে, বিনোদন, জনকল্যাণকর কাজে সংগঠিত ও সক্রিয় হওয়া, সামাজিক বন্ধন সৃষ্টি, অসহায়ত্ব ও আইডেন্টিটি সংকটে থাকাদের সহায়তার পাশাপাশি নানা দিক থেকে তাদের জীবনমান উন্নত করেছে ফেসবুক।

অনেকদিন থেকেই গবেষক ও ভোক্তা পরামর্শকরা সোস্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মের নেতিবাচক প্রভাব নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছেন। ফেসবুক ব্যবহার সমাজ এবং ব্যক্তিস্বাস্থ্য ও সুস্থ থাকার ক্ষেত্রে আদৌ কি কোনো ভূমিকা রাখছে, তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

বিশ্বব্যাপী ২৩০ কোটি মানুষ সক্রিয়ভাবে ফেসবুক ব্যবহার করছে। সোস্যাল মিডিয়া প্লাটফর্মটির মাধ্যমে তারা পরিচিত কিংবা অপরিচিতদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে, বিভিন্ন বিষয়ে পোস্ট দিচ্ছে। এছাড়া ফেসবুক ঘিরে গড়ে উঠেছে এফ কমার্স। অর্থাৎ এখন ব্যবসায় উদ্দেশ্যে ব্যাপক পরিসরে ফেসবুক প্লাটফর্ম ব্যবহার হচ্ছে। বিপুল সংখ্যক মানুষের নেশাগ্রস্তের মতো ব্যবহার ফেসবুকের প্রবৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখছে। ফেসবুক গত বছরজুড়ে ডজনের বেশি তথ্য কেলেঙ্কারির ঘটনা মোকাবেলা করেছে। বিশেষ করে ব্রিটিশ রাজনৈতিক এবং ডাটা বিশ্লেষক প্রতিষ্ঠান ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারি প্রকাশের পর মার্কিন আইনপ্রণেতাদের তীব্র সমালোচনা ও চাপের মুখে পড়েছিল ফেসবুক। এসব ঘটনার পরও ফেসবুকের ব্যবসায় বিন্দুমাত্র নেতিবাচক প্রভাব পড়েনি। গত বছরের চতুর্থ প্রান্তিকে ফেসবুকের ব্যবহারকারী বেড়েছে। একই প্রান্তিকে রেকর্ড মুনাফার মুখ দেখেছে প্রতিষ্ঠানটি। উত্তর আমেরিকায় সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতিতে রয়েছে ফেসবুক। কার্যক্রম শুরুর পর গত প্রান্তিকে প্রথম উত্তর আমেরিকায় গ্রাহক প্রবৃদ্ধির মুখ দেখেছে ফেসবুক।