ভারতের একটি বইয়ের ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী


ভারতের একটি বইয়ের ছবি দিয়ে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী


ভারতের একটি বইয়ের ছবি দিয়ে দেশে ধর্ম নিয়ে অপপ্রচার চালানো হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। তিনি বলেছেন, ‘আমাদের নতুন পাঠ্যবইয়ে ইসলামবিরোধী কোনো কিছু থাকার সুযোগ নেই। কারণ, আমরা নৈতিকতা শিক্ষায় বিশ্বাস করি। আর ধর্মীয় শিক্ষা সেই নৈতিকতার মূল স্তম্ভ।’

আজ শনিবার চট্টগ্রামের বায়েজিদে ‘এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন’-এর নির্মাণাধীন স্থায়ী ক্যাম্পাসে আয়োজিত দশম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ‘একটা অপশক্তি আছে, যারা অপপ্রচার চালাচ্ছে। তাদের আপনারা সবাই চিনেন। ভারতের একটি বইকে নিয়ে এই অপপ্রচার চালাচ্ছে, ওই বইটি সেখানেও চলে না। মূলত তারা মিথ্যাচার করে শুধু আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে নষ্ট করতে চায়, দেশের স্থিতিশীল পরিবেশটাকেও নষ্ট করতে চায়।’

আরও পড়ুন :

“২০৪১ সালের মধ্যে ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়া আওয়ামী লীগের লক্ষ্য”

এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান ডা. দীপু মনি আরও বলেন, ‘যারা বইয়ের ভুল শনাক্ত করেছেন, তাঁদের কাছে আমি কৃতজ্ঞ। নবম-দশম শ্রেণির বইয়ে কিছু ভুল শনাক্ত হয়েছে। এ বছর শিক্ষার্থীরা বইগুলো খুব মনোযোগ দিয়ে পড়েছে বলেই ভুলগুলো ধরা পড়েছে। আমি শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। শিক্ষার্থীদের এই মনোযোগ পাঠ্যবইগুলোর মান উন্নত করতে এবং আরও নির্ভুল করতে সহযোগিতা ও অনুপ্রাণিত করবে।’

চলতি মাসেই শিক্ষার্থীর হাতে সব বই পৌঁছে যাবে বলে জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘গত বছর কাগজশিল্প বিরাট একটা সংকটের সম্মুখীন হয়েছে। কাগজের একটা বড় সংকট ছিল। ডলার পরিস্থিতির কারণে আমরা আমদানির দিকেও যেতে পারিনি। এরপরও সব শিল্পের সহযোগিতায় জানুয়ারির ১ তারিখ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৮০ শতাংশ বই পৌঁছে দিতে পেরেছি। বাকি বইগুলো এ মাসের মধ্যেই আমরা শিক্ষার্থীদের হাতে পৌঁছে দেব।’

এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের আচার্য ও ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ারের স্ত্রী চেরি ব্লেয়ারের সভাপতিত্বে সমাবর্তনে উপস্থিত ছিলেন ডেনমার্কের সাবেক প্রধানমন্ত্রী লার্স রাসমুসেন, নিউইয়র্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ইমেরিটাস অধ্যাপক জন এডওয়ার্ড সেক্সটন, দি ইউনিভার্সিটি অব টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেসিডেন্ট ড. ফুজি, এশিয়ান উইমেন ইউনিভার্সিটির উপাচার্য ড. রুবানা হক প্রমুখ।

এ সময় বিশ্বব্যাপী উচ্চশিক্ষার প্রসারে অসাধারণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ অধ্যাপক জন এডওয়ার্ড সেক্সটনকে ডক্টরস অব হিউম্যান লেটার্সে ভূষিত করা হয়। এ ছাড়া অধ্যাপক সুনীল অমৃত, যুক্তরাষ্ট্রের ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসের অধ্যাপক রেণু ধাওয়ান ও আনন্দ ধাওয়ান, জার্মানির গোটিনজেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারতীয় ধর্মের অধ্যাপক রুপা বিশ্বনাথকে এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের বিশেষ সম্মানীয় অধ্যাপক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

তিন বছর পরে আয়োজিত সমাবর্তনে শিক্ষার্থীদের উচ্ছ্বাস ছিল ব্যাপক। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, বাংলাদেশসহ এশিয়ার ১৯টি দেশের শিক্ষার্থীরা এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছেন। সমাবর্তনে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৮৬ জন শিক্ষার্থীকে স্নাতকের সনদ তুলে দেওয়া হয়। সমাবর্তনে ২০২০,২০২১ ও ২০২২ সালের স্নাতক শিক্ষার্থী, শিক্ষক-কর্মীরা ছাড়াও দেশ-বিদেশের অতিথিসহ প্রায় দেড় হাজার অতিথি অংশ নেন।