#মি টু’র ফাঁদে রাজকুমার হিরানি



কৃষ্ণাঙ্গ নারী তারানা বুর্কে ২০০৬ সালে যৌন নির্যাতনবিরোধী ‘মি টু’ আন্দোলন শুরু করেছিলেন৷ এরপর হলিউডের প্রযোজক হার্ভে উইনস্টেইনের যৌন কেলেঙ্কারির খবর ফাঁসের সূত্র ধরে মার্কিন অভিনেত্রী অ্যালিসা মিলানো ‘মি টু’ হ্যাশট্যগের এই প্রচারণা শুরু করেন আবারো৷ যৌন নিপীড়ন ও হয়রানির ঘটনা প্রকাশ করতে নারীদের উৎসাহিত করতে এ প্রচারণা দ্রুত জনপ্রিয় হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে৷ পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে রীতিমত ঝড় তুলেছে এই আন্দোলন। এই বিতর্কে এবার নাম উঠেছে পরিচালক রাজকুমার হিরানির।২০১৮-র মার্চ থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে ‘সঞ্জু’ তৈরির সময় রাজকুমার এক মহিলাকে যৌন হেনস্থা করেছেন বলে অভিযোগ। আর এই অভিযোগ প্রকাশ্যে আসার পর থমকে গিয়েছে রাজকুমারের ভবিষ্যতের বেশ কিছু প্রজেক্ট।হাফিংটন পোস্ট ইন্ডিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই নারী জানিয়েছেন, ২০১৮ সালে ‘সঞ্জু’ ছবির শুটিংয়ের সময় রাজকুমার হিরানি তাঁকে কয়েকবার এই নির্যাতন করেছেন। ওই সময় নানাভাবে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করে তিনি ব্যর্থ হন। এরপর তাঁর মধ্যে ভীতি আর আতঙ্ক কাজ করছিল। তা থেকে কাটিয়ে উঠতে তাঁর মাস ছয়েক সময় লেগেছে। এবার তিনি ঘটনাটি সামনে আনার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এরই মধ্যে ২০১৮ সালের ৩ নভেম্বর ই–মেইলের মাধ্যমে ঘটনাটি তিনি ‘সঞ্জু’ ছবির প্রযোজক বিধু বিনোদ চোপড়া ও তাঁর স্ত্রী চিত্র সমালোচক অনুপমা চোপড়া আর চিত্রনাট্যকার অভিজিৎ যোশিকে জানিয়েছেন।এই নারী আরও বলেছেন, ‘ওই সময় নিজের চাকরি রক্ষা করার জন্য চুপ করে থাকা ছাড়া আর কোনো উপায় ছিল না। আমাকে মুখ বন্ধ রাখতে হয়েছিল, কারণ মুখ খুললে মাঝপথে কাজটা হারানোর সম্ভাবনা ছিল। আর রাজকুমার হিরানি যদি একবার কারও কাছে আমার কাজ নিয়ে কোনো খারাপ মন্তব্য করতেন, তাহলে এই ইন্ডাস্ট্রিতে আমার পক্ষে অন্য কাজ পাওয়া খুব কঠিন হতো। এমনকি আমার ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়ত।’অবশ্য যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করে এক বিবৃতিতে রাজকুমার বলেন, “আমি শকড। দু’মাস আগে এ বিষয়ে যখন জানতে পারি, তখনই অনেকে আইনি সাহায্য নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। কিন্তু অভিযোগ সরাসরি মিডিয়ায় নিয়ে যাওয়া হল। আমি এটুকু বলতে পারি গোটা ঘটনাটি মিথ্যে। আমার খ্যাতি নষ্ট করার জন্য কেউ ইচ্ছে করে এ সব রটাচ্ছে।’’এদিকে এই অভিযোগে ক্লিনচিট না পাওয়া পর্যন্ত রাজকুমারের ‘মুন্নাভাই ৩’-এর কাজ স্থগিত রয়েছে। রাজকুমার হিরানির বিরুদ্ধে যৌন হেনস্তার অভিযোগ সামনে আসার পর তাঁকে ‘এক লাড়কি কো দেখা তো অ্যায়সা লাগা’ ছবি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে। এই ছবির সহপ্রযোজক ছিলেন তিনি।