যুদ্ধে জড়াবে নাকি ভারত-পাকিস্তান?


indo pak

ভারত ও পাকিস্তানের জন্ম ১৯৪৭ সালের অক্টোবর মাসে। সদ্য বিভক্ত দুই প্রতিবেশীর মধ্যে বেজে উঠল যুদ্ধের দামামা। ইস্যু-কাশ্মীর।

১৯৬৫ সালে ফের এই ইস্যুতেই যুদ্ধে জড়ায় দুটি দেশ। এরপর সময়ভেদে বিভিন্ন ইস্যুতে সংঘাতে জড়িয়েছে ভারত-পাকিস্তান।

যদিও ভারত সব সময়ই পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদে জড়িত থাকার অভিযোগ করেছে। বরাবরই অস্বীকার করেছে পাকিস্তানও।

সম্প্রতি দুই চিরবৈরী প্রতিবেশীর সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে ঠেকেছেও একই ইস্যুতে ‘সন্ত্রাসবাদ’।ভারতনিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় ১৪ ফেব্রুয়ারি এক আত্মঘাতী হামলায় ভারতের আধা সামরিক বাহিনীর ৪০ জনের বেশি সদস্য নিহত হন।

শুরু হয়ে যায় কথার লড়াই। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি পাকিস্তানের দিকে অভিযোগ তুলে বলে দেন, এই হামলার দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে।

সেই দাঁতভাঙা জবাবই সোমবার দিবাগত ভোররাতে দুই দেশের নিয়ন্ত্রণরেখায় (লাইন অব কন্ট্রোল) ভারতের বিমানবাহিনীর হামলায় ৩০০ জন জঙ্গি নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে ভারত।

দেশটির দাবি, পাকিস্তানের জইশ-ই-মুহাম্মদ, হিজবুল্লাহ মুজাহেদিন ও লস্কর-ই-তাইয়েবার স্থাপনায় এ বিমান হামলা চালানো হয়। পাকিস্তানও হামলার কথা স্বীকার করে নিয়েছে। তবে ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে দাবি করেছে। একই সঙ্গে এ ঘটনার ‘জবাব’ দেওয়ার অঙ্গীকার করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

পাকিস্তানের দাবি, হামলা চালানো হয়েছে দেশটির বালাকোটে। পাকিস্তানের বিমানবাহিনী দ্রুত ও কার্যকর সাড়া দেওয়ায় ভারতীয় বিমানবাহিনী পিছু হটেছে। পিছু হটার’ কথাঅবশ্য স্বীকার করছে না ভারত। অন্যদিকে ভারতীয় হামলার ‘সামরিক জবাব’ দেয়ার কথা বলেছে পাকিস্তান।

সোমবার বিকেলেই জম্মু-কাশ্মীরে পাকিস্তানি বাহিনীর হামলায় ৫ ভারতীয় সেনা আহত হয়েছেন। এনডিটিভি জানিয়েছে হামলা হয়েছে বিকেল সাড়ে ৫টার সময়। এখন প্রশ্ন হলো এই পাল্টাপাল্টি পদক্ষেপের শেষ কি ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধ?