সম্পদের পরিমাণে ষষ্ঠ অবস্থানে ভারত



সম্পদের পরিমাণে ভারত এখন পৃথিবীর ষষ্ঠ অর্থনৈতিক শক্তি। সম্প্রতি আইএমএফের প্রকাশিত তালিকা অনুসারে ভারতের জিডিপি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ দশমিক ৫৯৭ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার।
বিশ্বব্যাংকের সর্বশেষ প্রকাশিত তালিকায় সবার ওপরে আছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যার সম্পদের পরিমাণ ১৯ দশমিক ৩৯ ট্রিলিয়ন ডলার। তার পরে ১২ দশমিক ২৩ ট্রিলিয়ন ডলার নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে আছে চীন। আর ৪ দশমিক ৮৭ ট্রিলিয়ন ডলার নিয়ে তৃতীয় স্থানে জাপান। ভারতের আগে রয়েছে আরও দুটি দেশ, জার্মানি ও ইংল্যান্ড। তালিকায় পাকিস্তানের অবস্থান ৪০ নম্বরে।
গত অর্থবছরে ভারতের প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৬ দশমিক ৭ শতাংশ, চলতি বছরের প্রথমার্ধে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ দশমিক ৭ শতাংশ। এক দশকের মধ্যে ভারতের মোট দেশজ উৎপাদন বা জিডিপি দ্বিগুণ হয়েছে। এ ক্ষেত্রে চীনকেও অতিক্রম করে গেছে ভারত। চীনের প্রবৃদ্ধির গতি কমে গেলেও ভারতের প্রবৃদ্ধির চাকা দ্রুত ছুটতে থাকবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।
বিশেষজ্ঞদের ধারণা, খুব দ্রুতই ভারত যুক্তরাজ্যকে ছাপিয়ে বিশ্বের পঞ্চম অর্থনৈতিক শক্তি হয়ে উঠবে। আর ভারতের এই উল্লম্ফনের মূল চালিকাশক্তি হলো উৎপাদন ও ভোক্তাব্যয়।
প্রসঙ্গত, ভারতের জনসংখ্যা এখন ১৩৪ কোটি। একসময় ভারত বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল দেশ হবে। যেখানে বিশ্বব্যাংকের তালিকায় সপ্তম স্থানে থাকা ফ্রান্সের জনসংখ্যা মাত্র ৬ কোটি ৭০ লাখ। অর্থাৎ ভারতের জনসংখ্যা ফ্রান্সের প্রায় ১৯ গুণ বেশি। সে কারণে ভারতের মানুষের জীবনমান ওই সব দেশের মানুষের মতো নয়।
অর্থনীতিবিদেরা মনে করেন, ডলার ও স্থানীয় মুদ্রার বিনিময় হারের ভিত্তিতে জিডিপির যে হিসাব করা হয় তাতে নিম্ন আয়ের দেশের অর্থনীতির মূল চিত্র পাওয়া যায় না, যেখানে আবার মুদ্রার মানও কম।
তবে, বিনিময় হারের বিবেচনায় ভারত এখনো নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ। দেশটির বর্তমান মাথাপিছু আয় ২ হাজার ডলারের কিছু কম। এটি ৪ হাজার ৫০০ ডলার অতিক্রম করলেই কেবল ভারত মধ্যম আয়ের দেশ হতে পারবে, তার আগে নয়। ওখানে যেতে গেলে তাকে অনেকটা পথ পেরোতে হবে। আর উচ্চ আয়ের দেশ হতে গেলে মাথাপিছু আয় ১২ হাজার ৫০০ ডলারের বেশি হতে হবে।
ভারতের আরও কিছু খবর;

ভারতে এবার বিরিয়ানি নিয়ে যুদ্ধ!

পাকিস্তান থেকে আসা হিন্দুরা কেন ভারত ছাড়ছেন?

ভারতে স্বর্ণ আমদানিতে মন্দাভাব

ছেলেধরা সন্দেহে ভারতে ৫ জনকে পিটিয়ে হত্যা

ভারতের ভবিষ্যৎ প্রধানমন্ত্রী হবে ঐশ্বরিয়া-কন্যা!