সর্বোচ্চ মর্যাদায় সৈয়দ আশরাফকে শেষ বিদায়



সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সৈয়দ আশরাফের প্রথম নামাজে জানাজা সম্পন্ন। এর আগে সংসদ ভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। দুপুর ১২টায় কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া মাঠে সৈয়দ আশরাফের দ্বিতীয় এরপর তৃতীয় নামাজে জানাজা দুপুর ২টায় ময়মনসিংহের আঞ্জুমান ঈদগাহ মাঠে সম্পন্ন হয়। সেখান থেকে মরদেহ ঢাকায় নিয়ে এসে বাদ আসর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হয়। শনিবার (০৫ জানুয়ারি) সন্ধ্যার পর থেকেই বেইলি রোডের ২১ নম্বর বাড়িতে নেওয়া হয় প্রয়াত সৈয়দ আশরাফের মরদেহ। এর আগে সন্ধ্যায় ব্যাংকক থেকে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে (বিজি-০৮৯) তার মরমেহ দেশে আনা হয়। সন্ধ্যা ৭টায় প্রয়াত সৈয়দ আশরাফের কফিনবন্দি মরদেহ হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বেইলি রোডের বাসায় আনা হয়। সেখানে তাকে শেষবারের মতো দেখতে আগে থেকেই অবস্থান করছিলেন আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। গত ৩ জানুয়ারি ব্যাংকক সময় রাত সাড়ে ৯টার দিকে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সেখানকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৬৭ বছর। জাতীয় চার নেতার অন্যতম ও মুক্তযুদ্ধকালীন অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামের ছেলে সৈয়দ আশরাফ আওয়ামী লীগের দুর্দিনের কাণ্ডারী হয়ে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছেন।