গুগল ম্যাপে না থাকা স্থানগুলো!



প্রযুক্তির অবদান কমিয়েছে সময় হ্রাস করেছে শ্রম। এর কল্যাণে গোটা বিশ্বটাই আজ আমাদের হাতের মূঠোয় চলে এসেছে। ঘরে বসেই বিশ্বের যেকোনো স্থান খুব সহজেই খুঁজে বের করতে পারেন গুগল ম্যাপের মাধ্যমে।

এমনকি সশরীরে না গিয়েও ঘুরে আসতে পারবেন গোটা পৃথিবীটাও। কিন্তু এমন কিছু জায়গা রয়েছে পৃথিবীতে যা গুগল ম্যাপেও খুঁজে পাওয়া যাবেনা।

জার্মানি, নেদারল্যান্ড, স্পেন, তাইওয়ান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত এমন সাতটি জায়গা রয়েছে যা গুগল ম্যাপেও খুঁজে পাওয়া যায়না। এই সাতটি জায়গা নিয়ে তৈরি হওয়া একটি প্রতিবেদনে এমনটাই বলা হয়েছে।

১. হাডসপেথ কাউন্টি:

টেক্সাসের একটি অংশের নাম হাডসপেথ কাউন্টি এবং যেখানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও মেক্সিকোর সীমান্ত এলাকা আছে। সীমান্ত থেকে প্রায় ১৫ কিলোমিটার দূরত্বে মেক্সিকোর সিউদাদ নামক এলাকাটি গুগল ম্যাপে বিকৃত অবস্থায় আছে।

২. ইসরায়েল:

ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আপনি গুগল ম্যাপে পুরো ইসরায়েল আপনি দেখতে পাবেননা।

৩. লোস ডোলোরেস:

হ্যালিপোয়েরতো ডি কার্টাগেনা নামক জায়গাটি স্পেনের লোস ডোলোরেসে অবস্থিত। এই জায়গাকে ঘিরে সেরকম কোনো তথ্যও তেমন কারো জানা নেই। এমনকি গুগল স্ট্রিট ভিউয়ে খুঁজলেও এর অবস্থান পাওয়া যায়না।

৪. রোজেজ:

ঠিক লোস ডোলোরেসের মতোই স্পেনের রোজেজ নামক জায়গাটির সন্ধানও গুগল ম্যাপে মেলে না। আনুমানিক ধারণা থেকে বলা হয়, মার্কিন বিমানবাহিনীর ৮৭৫তম আধুনিক বিমানটি এ জায়গা থেকে নিয়ন্ত্রন করা হয়। পাশাপাশি ওই বিমানে বিভিন্ন সতর্কবার্তাও এ স্থান থেকেই প্রেরণ করা হয়।

৫. ভলক্যাল বিমানঘাঁটি:

গুগল ম্যাপে হাজার খোঁজা সত্ত্বেও নেদারল্যান্ড এর ভলক্যাল বিমানঘাঁটি খুঁজে পাওয়া যায়না। এক ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া অভিযোগের মাধ্যমে জানা যায়, স্নায়ুযুদ্ধের সময়কার ২২টি পারমানবিক বোমা এই বিমানঘাঁটিতে লুকিয়ে রেখেছে মার্কিনযুক্তরাষ্ট্র।

৬. ন্যাশনাল সিকিউরিটি ব্যুরো:

চীনের জাতীয় নিরাপত্তার সদর দপ্তরটিও গুগল ম্যাপে পাওয়া যায়না। এটি তাইওয়ানে অবস্থিত এবং চীনের কয়েকটি গোয়েন্দা সংস্থার কার্যালয়ও এখানে রয়েছে।

৭. ন্যাটোর বিমানঘাঁটি:

জার্মানিতে সামরিক জোট ন্যাটোর একটি বিমানঘাঁটি আছে। মাইক্রোসফট এর বিংয়ে গিয়েলেনকির্চেন নামক এ জায়গাটি ব্লক করা নেই। তবে ওই জায়গাটি গুগল ম্যাপে পিক্সেল করে দেখানো হয়।