জাদুকরী কন্ঠের একজন প্রিয় মরিসন



ক্রিকেট মাঠে তারা লড়াই করে, ব্যাট-বলের যুদ্ধে আনন্দ দিতে থাকে আমাদের। তাদের এই লড়াইকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলে ধারাভাষ্য কক্ষে বসে থাকা ওইসব মানুষজন। যাদের কন্ঠে মন ছুঁয়ে যায়, বিমোহিত হয় ক্রিকেটপ্রেমীরা।

আজ তেমনি একজনের কথা বলব। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ – বিপিএল তখন সবে শুরু। প্রথম আসরে যখন আন্তর্জাতিক মানের কোনো ধারাভাষ্যকার পাওয়া যাচ্ছিল না, তিনি ছুটে এসেছিলেন বাংলাদেশে। মন জয় করে নিয়েছিলেন সবার।

হ্যা, ঠিকই ধরেছেন। বলছি ড্যানি মরিসনের কথা। সুদূর নিউজিল্যান্ড থেকে এসে জয় করে নিয়েছেন এদেশের খেলা পাগল মানুষদের মন। তাঁর কন্ঠই তাঁর ট্রেডমার্ক, তাঁর কন্ঠের প্রেমে পড়েনি এমন ক্রিকেটপ্রেমী খুব কমই আছে।

পুরোনাম ড্যানিয়েল কাইল মরিসন। নিউজিল্যান্ডের অকল্যান্ডে ১৯৬৬ সালের ৩রা ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। জ্বী, আজ তাঁর ৫৩ তম জন্মদিন। সবার আগে একরাশ লাল গোলাপের শুভেচ্ছা জানাই এই অসম্ভব ভালো, সাদা মনের মানুষটিকে।

নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটে গতিময় বোলার হিসেবে আবির্ভাব হয় ড্যানি মরিসনের। তিনি নিউজিল্যান্ডের প্রথম বোলার হিসেবে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে হ্যাটট্রিক করার গৌরব অর্জন করেন। ১৯৯৪ সালের ২৫শে মার্চ ভারতের বিপক্ষে এই হ্যাটট্রিক করেন তিনি। এর আগে ১৯৮৭ সালে ২১ বছর বয়সে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অভিষেক হয় তাঁর।

বল হাতে সাফল্য থাকলেও, ব্যাট হাতে উল্লেখযোগ্য কিছু করতে পারেননি। তবে, ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৯৯৭ সালের ২৯শে জানুয়ারি একটি টেস্ট বাঁচাতে দশম উইকেট জুটিতে নাথান এস্টেলের সাথে ১০৬ রানের জুটি গড়েন।

ব্যাটিং সাফল্য বলতে তাঁর আর কিছু নেই। ব্যাট হাতে তিনি পরিচিত অন্যকারণে। টেস্ট ক্রিকেটে ডাক মারার রেকর্ডে অন্যতম।হয়ে আছেন তিনি। ৪৮ টেস্ট খেলে ২৪ ইনিংসেই কোনো রান না করেই ফিরেছেন প্যাভিলিয়নে।

তিনি ৪৮টি টেস্ট ও ৯৬টি ওয়ানডে খেলেছেন। টেস্ট ক্রিকেটে তাঁর উইকেট সংখ্যা ১৬০টি। দশবার নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ৬৯ রান দিয়ে ৫ উইকেট তাঁর সেরা সাফল্য। একদিনের ক্রিকেটে তাঁর আছে ১২৬ উইকেট। সেরা বোলিং ৫/৪৬ পাকিস্তানের বিপক্ষে। দুইবার নিয়েছেন পাঁচ উইকেট।

খেলোয়াড়ি পরবর্তী জীবনে তিনি একজন ধারাভাষ্যকার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন। যেখানে জয় করে নিয়েছেন মানুষের মন। তাঁর কথা বলার নিজস্বতা তাঁকে অন্যদের থেকে আলাদা করেছে। খেলার মাঠের খুনসুটি, হাসি-মজায় মাতিয়ে রাখা এ মানুষটি প্রিয় হয়ে উঠেছেন সবার। বিপিএল, আইপিএলসহ বিভিন্ন টি২০ লীগ, আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ধারাভাষ্য দিয়ে থাকেন তিনি।

ড্যানি মরিসন এখন বাংলাদেশে। তার কন্ঠের জাদুতে বিমোহিত বিপিএলের প্রতিটি মুহূর্ত। আজ এই সদা হাস্যোজ্জ্বল মানুষটিকে জানাই জন্মদিনের অনেক শুভেচ্ছা। বেঁচে থাকুন স্যার ক্রিকেটের আবেগে, ক্রিকেটের ভালোবাসায়। অনেক অনেক শুভকামনা আপনার জন্য।