শনির চাঁদে আছে প্রাণের অস্তিত্ব?



পৃথিবীর বাইরেও রয়েছে প্রাণের অস্তিত্ব। এমন ধারণা বিজ্ঞানীদের দীর্ঘদিনের। এমন প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজে পেতে চেষ্টা চালাচ্ছে বিজ্ঞানীরা। এবার শনি গ্রহের সবচেয়ে বড় চাঁদ ‘টাইটান’-এ ড্রোন পাঠাবে যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ সংস্থা নাসা।
সৌরজগতের মধ্যে একমাত্র এই উপগ্রহটির অবস্থা পৃথিবীর পূর্বাবস্থার মতো। বিজ্ঞানীদের ধারণা, টাইটানে পানি রয়েছে, তবে তা পৃথিবীর তুলনায় ২-৩ গুণ ঘন।
এ কারণেই বিজ্ঞানীরা মত দিয়েছেন, এই উপগ্রহকে ঘিরে গবেষণা করা সম্ভব হলে পৃথিবীতে কীভাবে প্রাণের সঞ্চার হয়েছিল এ সম্পর্কে নতুন কোনো তথ্য পাওয়া যাবে।
২০২৬ সালে আট বছর মেয়াদি ‘টাইটান’ মিশন শুরু করবে নাসা। ‘ড্রাগনফ্লাই’ নামে পারমাণবিক জ্বালানিচালিত ড্রোনটি ২০৩৪ সালে টাইটানে পৌঁছাবে। এটাই হবে মহাশূন্যে পাঠানো প্রথম পারমাণবিক জ্বালানিচালিত যান।
ড্রোনটি টাইটানের ঘন বায়ুমণ্ডলে প্রায় ১০০ মাইল এলাকাজুড়ে উড্ডয়ন করতে পারবে বলেও জানিয়েছেন নাসার পরিচালক জিম ব্রিডেনস্টাইন।
তিনি আরো জানান, ড্রাগনফ্লাইয়ের প্রযুক্তি টাইটানে বসবাসযোগ্য পরিবেশ আছে কি না, তা মূল্যায়ন করতে পারবে। সেখানে আগে বা এখনও কোনো প্রাণের অস্তিত্বের চিহ্ন আছে কি না, তাও খুঁজে দেখবে জ্বালানি চালিত যানটি।