চুল কালো করতে যা খাবেন



চুল পাকতে বয়স লাগেনা। অনেকের আবার জিনেটিক্যাল কারণেই বংশ পরম্পরায় চুল পেকে থাকে। চুল পাকা নিয়ন্ত্রণে বা পাকা চুল কালো করতে অনেক কিছুই করে থাকেন আপনি।

অনেক সময় দেয়া যায় বয়স ৪০ পেরোলেই চুলে পাক ধরতে শুরু করে। দিনের পর দিন এই চুল পাকা বাড়তে পারে। তবে চুল পাকা সত্যি একটি অস্বস্তিকর ব্যাপর।

কারণ ৪০ বছর বয়সে যদি আপনার চুল পাকতে শুরু করে তবে অনেকে ভেবে নেবে আপনার বয়স বেড়ে গেছে। এছাড়া আপনার বাহ্যিক সৌন্দর্য নষ্ট হবে চুল পাকার কারণে।

আবার পাকা চুলের কারণে আপনার মনও খারাপ হয় এবং হীনমন্যতায়ও ভোগেন। তবে কি চুল রং করবেন। চুলে কৃত্রিম রং ব্যবহারের করলে চুল রুক্ষ হয়ে যায়।

অনেক সময় দেখা যায় আপনার চুল পড়তে থাকে। আমাদের শরীরে পুষ্টির ঘাটতি দেখা দিলে চুল পাকে। চুল কালো কার জন্য আমরা অনেকে চলে বিভিন্ন উপাদান ব্যবহার করি।

এসব উপাদানের অধিকাংশই কৃত্রিম। এতে অনেক সময়ই ক্ষতি হয় চুলের। যদি চুলে ব্যবহারের চেয়ে তা যদি খাওয়ার ফলে বেশি উপকার পাওয়া যায়।

তবে কী করবেন? চুল পাকার থেকে রেহাই পেতে ডাক্তারও হয়তো দেখিয়েছেন। তবে এবার কোনো ডাক্তার বা ওষুধ নয়। ঘরোয়া উপায়ে কোনো প্রকার কালার ছাড়াই আপনি চুল কালো করতে পারেন।

ভারতের জনপ্রিয় সংবাদ মাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া জনপ্রিয় বিউটি ব্লগের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, কোনো ধরনের চুলের রং ছাড়াই ঘরোয়া উপায়ে আপনি চুল কালো করতে পারেন

। তবে এর জন্য আপনি কিছু প্রাকৃতিক উপাদানের মিশ্রণে চুল কালো করতে পারেন। এর জন্য কোনো ধরনের কৃত্রিম রাসায়নিক রঙের প্রয়োজন পড়বে না।

আসুন জেনে নেই ঘরোয়া কিছু উপাদান ব্যবহার করে কীভাবে চুল কালো করবেন।

ঘরে বসেই পাওয়া সম্ভব আরাধ্য কালো চুল। সুতরাং চলুন জেনে নেয়া সেই পদ্ধতিটি :

লেবু ৪টি, মধু ১ কাপ, রসুন ৬ কোয়া ও ১ কাপ তিসির তেল একসঙ্গে ব্লেন্ড করে নিন। মিশ্রণ পরিষ্কার কাচের বোতলে সংরক্ষণ করুন।

তবে মিশ্রণটি চুলে দেওয়ার জন্য নয়। সকালে, দুপুরে, বিকালে ও রাতে খাওয়ার আগে এক চা চামচ খাবেন।  এভাবে টানা ৩ মাস খেলে আপনি ভালো ফল পাবেন।

সুস্থ থাকুন, নিজেকে সুন্দর রাখুন, দেখবেন মন ভালো থাকলে শরীর ও ভালো থাকবে।