পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম নিয়ন্ত্রণে ৪ পরামর্শ



বিশ্বজুড়ে নারীদের বন্ধ্যাত্বের অন্যতম কারণ পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম। বর্তমানে নারীদের মধ্যে পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের প্রকোপ ব্যাপক হারে দেখা দিয়েছে। বিশ্বের প্রায় ২০ শতাংশ নারী এই জটিল সমস্যায় ভুগছেন। চিকিৎসা শাস্ত্রে এখনো এই রোগ সম্পূর্ণ নিরাময়ের কোন পদ্ধতি আবিষ্কৃত হয়নি। তবে জীবনযাপনে কিছু সাধারণ পরিবর্তন আনলেই আপনি এই সমস্যা অনেকটাই মোকাবিলা করতে পারবেন।

আরও পড়ুন : যৌন আসক্তিকে রোগ হিসেবে তালিকাভুক্তির দাবি

অনেকেই মনে করেন পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমে আপনার জীবনযাপনের আগাগোড়া পুরোটাই পরিবর্তন করতে হবে। কিন্তু বাস্তবিক পক্ষে মাত্র চারটি পরিবর্তন আনলেই আপনি এই সমস্যা অনেকাংশে নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারবেন। আসুন জেনে নেই কি সেই ৪টি পরিবর্তন;

পরিপূর্ণ খাদ্যাভ্যাস:
পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম থাকলে আপনার অবশ্যই একটি পুষ্টিকর খাদ্যাভ্যাস অনুসরণ করতে হবে। প্রচুর পরিমাণে ফল, শাক-সবজী, মাছ খেতে হবে। এক্ষেত্রে যতটা সম্ভব ময়দা জাতীয় খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকতে হবে। প্রসেসড ফুড এবং ফাস্ট ফুড গ্রহণ পুরোপুরি বন্ধ করে দিতে হবে।

আরও পড়ুন : মাইগ্রেন থেকে হতে পারে হৃদরোগ

ওজন নিয়ন্ত্রণ:
অতিরিক্ত ওজন পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের সমস্যাকে আরও জটিল করে তোলে। তাই আপনাকে অবশ্যই আপনার অতিরিক্ত ওজনের ক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে। এক্ষেত্রে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট শরীরচর্চা করলে অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে থাকবে আপনার ওজন।

আরও পড়ুন : রোগীদের লিভারে অটোগ্রাফ দিতেন তিনি!

মানসিক চাপ:
শরীর নিয়ে সচেতন থাকলেও আমরা অনেকেই মন নিয়ে সচেতন থাকি না। মানসিক চাপ আপনার পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের সমস্যাকে আরও বাড়িয়ে দিতে পারে। মানসিক চাপ আপনার শরীরের পুরুষ হরমোনের নিঃসরণ বৃদ্ধি করে যা ইনসুলিন রেজিস্টেন্স বাড়ায়; এমনকি এক্ষেত্রে আপনি টাইপ-২ ডায়াবেটিসেও আক্রান্ত হতে পারেন। সুতরাং জীবন যখন যেমনই হোক না কেন আপনার মানসিক চাপ অবশ্যই নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে।

আরও পড়ুন : বাংলাদেশে স্বাস্থ্যসেবা: রোগীপ্রতি গড়ে ৪৮ সেকেন্ড সময় দেন চিকিৎসকরা

যোগ ব্যায়াম:
প্রতিদিন যোগ ব্যায়ামের চর্চা আপনার মনকে প্রশান্ত করে। আর মনের প্রশান্তি আপনাকে পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোমের বিরুদ্ধে যুদ্ধে অনেকাংশে এগিয়ে নিয়ে যাবে। এছাড়া কিছু কিছু বিশেষ যোগাসন আপনার পেলভিক অঞ্চলে রক্ত চলাচল বৃদ্ধি করে। যা পলিসিস্টিক ওভারি সিনড্রোম নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে।