করোনা: ভারতে প্রথম দেশীয় কিট বানালেন তিনি, খরচ মাত্র ১২০০ টাকা



পুরো ভারতজুড়ে ক্রমেই বাড়ছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

কিন্তু ১৩০ কোটির দেশে ‘মাস টেস্টিং’ কতটা সম্ভব, তা নিয়ে প্রথম থেকেই সংশয়ে বিশেষজ্ঞরা। এমনকী করোনার উপসর্গ নিয়ে বিপুল সংখ্যক মানুষ হাসপাতালগুলিতে এলে তাদের কীভাবে টেস্ট করা হবে, তা নিয়ে নানা আশঙ্কার কথা শোনা যাচ্ছিল।

দেশের এই চরম দুঃসময়েই  সাফল্য এনে দিলেন মিনাল দাখাভে ভোঁসলে নামের এক নারী। দেশের জন্য প্রথম দেশীয় কিট বানালেন তিনি, যা  ন্যাশনাল ইন্সটিউট অব ভাইরোলজির (এনআইভি) নির্ভুল প্রমাণিত হয়েছে।

অথচ মিনাল যখন এই কিট তৈরি করছেন, তখন তিনি অন্তঃসত্ত্বা। একদিকে দেশের জন্য সবচেয়ে জরুরি কাজ, অপরদিকে ক্রমেই খারাপ হতে থাকা শরীর। মিনাল কিন্তু হাল ছাড়েননি। কিট নিয়ে নাগাড়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা করে গিয়েছেন। আর তাতেই প্রথমবারের মতো সম্পূর্ণ ভারতে তৈরি কোন কিট শতভাগ নির্ভুল ফল পাওয়ার সাফল্য দেখাল। এই সাফল্য এল মিনালের হাত ধরেই।

মিনাল মহারাষ্ট্রের পুনের মাইল্যাব ডিসকভারির গবেষণা ও উন্নয়ন প্রধান। তিনি একজন ভাইরোলজিস্ট, ভাইরাস নিয়ে কাজ তার। এই প্রথম ভারতীয় কোনো প্রতিষ্ঠান হিসেবে মাইল্যাব করোনা ভাইরাস পরীক্ষার জন্য কিট বানিয়ে বাজারজাত করার অনুমতি পেয়েছে। গত বৃহস্পতিবার তাদের কিট বাজারে পৌঁছে গেছে। প্রথমে প্রতিষ্ঠানটি পুনে, মুম্বই, দিল্লি, গোয়া ও বেঙ্গালুরুতে ১৫০টি কিট পাঠিয়েছে। আর এই খবর মিনাল শুনেছেন হাসপাতালের বেডে শুয়ে, কোলে কন্যা সন্তানকে নিয়ে। স্বভাবতই সন্তান জন্মের পাশাপাশি দেশের জন্য এত জরুরি এক আবিষ্কার করায় প্রচন্ড খুশি তিনি।

সবচেয়ে জরুরি বিষয়, বাইরে থেকে কিট এনে পরীক্ষার খরচ যেখানে ৪৫০০ টাকা, সেখানে মিনাল ও তার সহকারীদের তৈরি একটি কিট দিয়ে ১০০টি নমুনা পরীক্ষা করা যাবে। খরচ পড়বে মাত্র ১২০০ টাকা।

এইসময়

পেপার’স লাইফ/নিউজ/আন্তর্জাতিক ডেস্ক