মিরপুরে জঙ্গি আস্তানায় র‍্যাবের অভিযান




এ বিষয়ে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বলছেন, ছয় তলা ওই ভবনের পঞ্চম তলার আবদুল্লাহ নামের ‘দুর্ধর্ষ’ এক জঙ্গি অবস্থান করছে। তার সঙ্গে যোগাযোগ করে  তাকে আত্মসমর্পণের আহ্বান জানানো হচ্ছে। টাঙ্গাইলের এলেঙ্গায় সোমবার রাতে এক বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ‘জেএমবির জঙ্গি’ দুই ভাইকে আটক করার পর তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে মধ্য রাতে ঢাকায় এই অভিযান শুরু হয়।
মাজার রোডের পাশে বুদ্ধিজীবী কবরস্থানের দক্ষিণে বর্ধনবাড়ি ভাঙ্গা ওয়ালের গলির ২/৩-বি হোল্ডিংয়ে ছয় তলা ওই বাড়ির মালিক হাবিবুল্লাহ বাহার আজাদ নামের এক ব্যক্তি। তিনি নিজেও পরিবার নিয়ে ওই বাড়ির দ্বিতীয় তলায় থাকেন।
মুফতি মাহমুদ খান জানান, ‘র‌্যাব ওই বাড়ি ঘিরে ফেলার পর রাত ১টার দিকে সেখান থেকে চারটি বোমা ছোঁড়া হয়। তবে তাতে কেউ হতাহত হননি। ওই বাড়ি থেকে ছোড়া বোমার মধ্যে পেট্রোল বোমাও রয়েছে। সেখানে আরও বিস্ফোরক থাকতে পারে বলে গোয়েন্দা তথ্য রয়েছে।”
এদিকে রাতেই ফায়ার ব্রিগেডের একটি গাড়ি ঘটনাস্থলে পৌঁছায় এবং ভোরের দিকে ওই গাড়ি থেকে জঙ্গি আস্তানার চারপাশে পানি ছিটানো হয়। ঝুঁকি এড়াতে ওই ভবনের বিভিন্ন ইউনিট এবং লাগোয়া বাড়িগুলো থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নিতে কাজ শুরু করেন র‌্যাব সদস্যরা।
মুফতি মাহমুদ খান বলেন, ‘ওই ভবন থেকে ৬৫ জনকে সরিয়ে এনে স্থানীয় একটি স্কুলের রাখা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, ভেতরে থাকা জঙ্গির নাম আবদুল্লাহ। যাদের সরিয়ে আনা হয়েছে, তাদের মধ্যে আবদুল্লাহর এক বোনও আছে। আবদুল্লাহর সঙ্গে যোগাযোগ করার সময় সেই বলেছে, যেন অন্যদের সঙ্গে তার বোনকেও সরিয়ে নেওয়া হয়। আমরা মোবাইল ফোনে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছি। আবদুল্লাহকে আত্মসমর্পণ করতে বলা হচ্ছে। সে জানিয়েছে, সে ভাবছে। ওই ভবনের ভেতরে আবদুল্লাহর সঙ্গে তার পরিবারের আরও সদস্য রয়েছে।’