মাসুম হোসেন ভূঁইয়ার কবিতা 'এমন কেন তুমি?'



কমলা রঙের ঠোঁট তোমার
গোলাপি রঙের আভা
তুমিই তো প্রোগ্রামিংয়ের জাভা
সর্বাঙ্গে আকর্ষণ তোমার
তাই তোমার প্রতি নজর থাকে সবার।

দেহাবয়বে অতুলনীয়া তুমি
যেন চিরকালের সেরা মাতৃভূমি
তোমার মাঝেই কেন এতো সৌন্দর্য
তুমিই যেন সবার ঐশ্বর্য ।

তুমি চিরসুন্দর বলেই তোমায় ভাবে সবে সারাক্ষণ
কত্ত জনের যায় দিন, যায় যে কত্ত প্রতীক্ষণ
তোমার ভাবনায় ভেতরটা তাদের ব্যতিব্যস্ত থাকে সারাক্ষণ
হয়তো কেউ কেউ তোমায় পাওয়ার বাসনাও করে সর্বক্ষণ ।

তোমার অতুলনীয় হাসি, কখনোই হয় না যেন বাসি।
তুমি কেনইবা হতে যাবে কারো দাসী?
কেন দূর থেকে দাও শুধু শুধুই মুচকি হাসি
কেন শূন্য হাতে করতে চাও দূর পরবাসী?।

ব্যতিক্রমী ভঙ্গিমায় ঠোঁট নাড়িয়ে কথা বলা দেখার সামান্য প্রত্যাশা
অনেক সময়ই সেটা না পেয়ে, কত্ত জনের মনটা ভেঙে যায় হতাশায়
যেকোনো উছিলায় তোমার সাথে কথা বলার আকাঙ্ক্ষায়
থাকে তারা আশায় আশায়
তুমি তা বুঝতে পেরে প্রত্যুত্তর করো শরীরী ভাষায়
তখন তাদের সর্বাঙ্গ হতাশায় ডুবে হয়ে যায় নিরাশায় ।

তুমি মানুষ, তারাও তো মানুষ!
তুমি যেন ভাবো তারা শুধুই ফানুস
আসবে, আসবেই একদিন সেই প্রত্যুষ
থাকবে না লাবণ্য, থাকবে না কোনো জৌলুস ।

সেসব দিনের কথা একবারও কী ভাববে?
কী করে তারা তোমার কাছে যাবে?
একান্তে শুধু মনের কথাটুকু বলবে।
এরপরও কী অহঙ্কারী হয়েই থাকবে?
সুযোগ দেবে, কথা বলবে, কাছে কী যাবে ।

মরলেই সব শেষ
কেন তাদের দেবে না একটুখানি শান্তির রেশ?
তোমার থেকে কিছু পেয়ে তারা যদি হতে পারে ফ্রেশ!
তুমিও সৃষ্টিকর্তার কাছে পেতে পারো, পুণ্য অশেষ ।

মাসুম হোসেন ভূঁইয়া
জ্যেষ্ঠ বার্তাকক্ষ সম্পাদক, সময় সংবাদ
ইমেইল: masumlabib@gmail.com

আরও পড়ুন;

মাসুম হোসেন ভূঁইয়ার কবিতা ‘কথোপকথন’

“ভুলভ্রান্তি এবং মানুষ”  

“বাহ্যিক সৌন্দর্যই কী মুখ্য