শেয়ারবাজার: নিম্নমুখি প্রবণতায় শেষ হয়েছে লেনদেন




সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবসে দেশের উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে মূল্য সূচকের নিম্নমুখি প্রবণতায় শেষ হয়েছে লেনদেন। দুই স্টক এক্সচেঞ্জেই দর কমেছে অধিকাংশ সিকিউরিটিজের।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, দিন শেষে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ৬৩ দশমিক ৬৭ পয়েন্ট বা ১ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ কমে ৬ হাজার ১৭২ দশমিক ৯১ পয়েন্টে নেমে গেছে। ১৫ দশমিক ৪৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৭ শতাংশ কমে ২ হাজার ১৯৮ দশমিক ৬১ পয়েন্টে নেমেছে স্টক এক্সচেঞ্জটির ব্লু-চিপ সূচক ডিএস৩০। আর ৯ দশমিক ২৮ পয়েন্ট বা দশমিক ৬৭ শতাংশ কমে ১ হাজার ৩৬৬ দশমিক শূন্য ২ পয়েন্টে অবস্থান করছে শরিয়াহ সূচক ডিএসইএস।
সারা দিনে ডিএসইতে ৩৭ কোটি ৮৫ হাজার ৪৭১টি শেয়ার, করপোরেট বন্ড ও মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিট হাতবদল হয়, যার বাজারদর ছিল ১ হাজার ৮২ কোটি ৯০ হাজার টাকা। আগের কার্যদিবসে তা ছিল ১ হাজার ৫০৮ কোটি ৭৩ লাখ ৯৩ হাজার টাকা। লেনদেনকৃত সিকিউরিটিজের মধ্যে দিন শেষে দাম বেড়েছে ৮৬টির, কমেছে ২০৬টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৩৮টির বাজারদর।
এদিকে দেশের আরেক শেয়ারবাজার সিএসইর ব্রড ইনডেক্স সিএসসিএক্স দশমিক ১৩৩ দশমিক ৫৪ পয়েন্ট কমে ১১ হাজার ৫৭৯ দশমিক ৯৯ পয়েন্টে উন্নীত হয়। ১৭০ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট কমে ১৬ হাজার ৪৫৫ দশমিক ৮৫ পয়েন্টে অবস্থান করছে স্টক এক্সচেঞ্জটির নির্বাচিত কোম্পানিগুলোর সূচক সিএসই ৩০। সিএসইতে কেনাবেচা হয়েছে ৫১ কোটি ১৭ লাখ ১০৯ টাকার সিকিউরিটিজ, যা এর আগের কার্যদিবসে ছিল ৭৮ কোটি ১ লাখ ৭২ হাজার ৭৭৩ টাকা। এদিন লেনদেনকৃত সিকিউরিটিজের মধ্যে দাম বেড়েছে ৭০টির, কমেছে ১৪৪টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২৭টির বাজারদর।