শেয়ারবাজার: লেনদেন বেড়েছে ডিএসইতে




উভয় স্টক এক্সচেঞ্জে সপ্তাহের তৃতীয় কার্যদিবসে দেশের মূল্য সূচকের নেতিবাচক প্রবণতায় শেষ হয়েছে লেনদেন। চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বেচাকেনা কমলেও বেড়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই)।
বাজার পর্যবেক্ষণে দেখা যায়, দিন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ১ দশমিক ৯৭ পয়েন্ট বা দশমিক শূন্য ৩ শতাংশ কমে ৬ হাজার ১০৪ দশমিক ২৭ পয়েন্টে নেমে গেছে। ৩ দশমিক ২৩ পয়েন্ট বা দশমিক ১৫ শতাংশ কমে ২ হাজার ১৮২ দশমিক ৭৪ পয়েন্টে নেমেছে স্টক এক্সচেঞ্জটির ব্লু-চিপ সূচক ডিএস৩০। আর ২ দশমিক ১৫ পয়েন্ট বা দশমিক ১৬ শতাংশ কমে ১ হাজার ৩৫৫ দশমিক ৪৬ পয়েন্টে অবস্থান করছে শরিয়াহ সূচক ডিএসইএস।
সারা দিনে ডিএসইতে ২২ কোটি ৭১ লাখ ৪২ হাজার ২৪০টি শেয়ার, করপোরেট বন্ড ও মিউচুয়াল ফান্ড ইউনিট হাতবদল হয়, যার বাজারদর ছিল ৭১৫ কোটি ২২ লাখ ২ হাজার টাকা। আগের কার্যদিবসে তা ছিল ৬৬৬ কোটি ১৭ লাখ ১৬ হাজার টাকা। লেনদেনকৃত সিকিউরিটিজের মধ্যে দিন শেষে দাম বেড়েছে ১১৩টির, কমেছে ১৮০টির ও অপরিবর্তিত ছিল ৩৭টির বাজারদর।
এদিকে দেশের আরেক শেয়ারবাজার সিএসইর ব্রড ইনডেক্স সিএসসিএক্স ৯ দশমিক ৩১ পয়েন্ট কমে ১১ হাজার ৪৪৭ দশমিক ২২ পয়েন্টে নেমে গেছে। ৩৫ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট কমে ১৬ হাজার ৪২০ দশমিক ৫৩ পয়েন্টে অবস্থান করছে স্টক এক্সচেঞ্জটির নির্বাচিত কোম্পানিগুলোর সূচক সিএসই ৩০। সিএসইতে কেনাবেচা হয়েছে ৪০ কোটি ৫৩ লাখ ৫ হাজার ৬৩৫ টাকার সিকিউরিটিজ, যা এর আগের কার্যদিবসে ছিল ৪৮ কোটি ৮৯ লাখ ৫৬ হাজার ২২৬ টাকা। এদিন লেনদেনকৃত সিকিউরিটিজের মধ্যে দাম বেড়েছে ৮৩টির, কমেছে ১৪২টির ও অপরিবর্তিত ছিল ২৩টির বাজারদর।